সুয়ারেসের হ্যাটট্রিকে রিয়ালকে গুঁড়িয়ে দিল বার্সা

কাম্প নউয়ে রোববার স্থানীয় সময় বিকালে শুরু হওয়া ম্যাচটি ৫-১ গোলে জিতে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এসেছে এরনেস্তো ভালভেরদের দল। সুয়ারেসের হ্যাটট্রিকের আগে-পরে অন্য দুটি গোল ফিলিপে কৌতিনিয়ো ও আর্তুরো ভিদালের।

লিগে এই নিয়ে টানা পাঁচ ম্যাচ জিততে পারল না রিয়াল। হারল টানা তিন ম্যাচে।

ম্যাচের অষ্টম মিনিটে ম্যাচের প্রথম সুযোগটি পেয়েছিল রিয়াল। তবে গ্যারেথ বেলের ক্রসে হাফ ভলিতে বল উড়িয়ে মেরে তা নষ্ট করেন করিম বেনজেমা।

একাদশ মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোল পেয়ে যায় বার্সেলোনা। বাঁ দিক দিয়ে বল নিয়ে অনেকটা দৌড়ে ডি-বক্সে ঢুকে লাইনের কাছ থেকে জর্দি আলবার কাটব্যাকে বাঁ পায়ের শটে কাছের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার কৌতিনিয়ো। হাতের চোটের কারণে মাঠে না থেকে গ্যালারিতে বসে থাকা মেসির চোখমুখে তখন উচ্ছ্বাস।

১৯তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করতে পারতেন আরেক ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার আর্থার। তবে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শট ঝাঁপিয়ে দুর্দান্তভাবে ঠেকান থিবো কোর্তোয়া।

৩০তম মিনিটে স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সুয়ারেস। ডি-বক্সে রাফায়েল ভারানের ট্যাকলে উরুগুয়ের এই স্ট্রাইকার পড়ে গেলে ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। কর্তোয়া ঠিক দিকেই ঝাঁপিয়েছিলেন, কিন্তু পোস্ট ঘেঁষে নেওয়া নিখুঁত শট ঠেকাতে পারেননি।

রিয়াল দ্বিতীয়ার্ধে শুরুটা করে দারুণ। ৫০তম মিনিটে ব্যবধান কমান মার্সেলো। ডান দিক থেকে ইসকোর ক্রস বার্সেলোনার এক জনের পায়ে লাগার পর পেয়ে যান ব্রাজিলিয়ান এই ডিফেন্ডার। বুক দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিতে নিতে জেরার্দ পিকেকে ফাকি দিয়ে ডান পায়ের শটে বল ঠিকানায় পাঠান তিনি।

গোলের দেখা পেয়ে উজ্জীবিত হয়ে ওঠা রিয়াল ৫৬তম মিনিটে সমতাও ফেরাতে পারত। তবে ডি-বক্সের মধ্যে থেকে লুকা মদ্রিচের শটে বল পোস্টের নিচের অংশে লাগে। কিছুক্ষণ পর সুয়ারেসের ভলিতেও বল লাগে পোস্টে।

৬৭তম মিনিটে ডান দিক থেকে বদলি হিসেবে নামা লুকাস ভাসকেসের দারুণ ক্রসে কাছ থেকে বেনজেমার হেড ক্রসবারের একটু উপর দিয়ে চলে যায়। এরপর আবার শুরু হয় বার্সেলোনার আধিপত্য।

৭৫তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান সুয়ারেস। সের্হিও রবের্তোর বানিয়ে দেওয়া বলে প্রায় ১৬ গজ দূর থেকে জোরালো হেডে পরাস্ত করেন কোর্তায়াকে।

৮৩তম মিনিটে রামোসের ভুলে রবের্তো বল পেয়ে বাড়ান সামনে। বল ধরে এগিয়ে আসা কর্তোয়ার ওপর দিয়ে নিখুঁত চিপে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন সুয়ারেস। চলতি লিগে তার মোট গোল হলো সাতটি।

রিয়ালের কফিনে ৮৭তম মিনিটে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন আগের মিনিটেই বদলি নামা ভিদাল। কৌতিনিয়োর বদলি নামা দেম্বেলের বাঁ দিক থেকে বাড়ানো দারুণ ক্রসে লাফিয়ে হেডে গোলটি করেন চিলির মিডফিল্ডার।

১০ ম্যাচে ছয় জয় ও তিন ড্রয়ে শীর্ষে ওঠা বার্সেলোনার পয়েন্ট ২১। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে হুলেন লোপেতেগির দল আছে নবম স্থানে।