হাইড্রোজেনে চলছে ট্রেন

বিশ্বের প্রথম হাইড্রোজেন ইঞ্জিনচালিত পরিবেশবান্ধব ট্রেন চালু হলো জার্মানিতে। ফ্রান্সের দ্রুতগতির ট্রেন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যালস্টোম এই হাইড্রোজন ট্রেন বানিয়েছে। নীল রঙের এই ট্রেনের নাম কোরাডিয়া ইলিন্ট ট্রেন।

গতকাল সোমবার জার্মানিতে প্রথম সেবা দিতে শুরু করে দুটো ট্রেন। হাইড্রোজেন ট্রেন প্রথম ছাড়া হয় জার্মানির লোয়ার সেক্সন রাজ্যের ব্রেমেরফুর্দে স্টেশন থেকে। জার্মানির কুক্সহ্যাভেন, ব্রেমারহেভেন, ব্রেমারভার্দে ও বুক্সেহুডে চলাচল করবে ট্রেন দুটি। জার্মানির কুক্সহেভেন ও বুক্সতেহুদে শহরের মধ্যে ১০০ কিলোমিটার রেলপথে চলাচলকারী ট্রেনগুলোর ডিজেল ইঞ্জিন সরিয়ে হাইড্রোজেন ইঞ্জিন জুড়ে দেওয়া হয়। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে আরও ১৪টি হাইড্রোজেন ইঞ্জিন যোগ করার পরিকল্পনা রয়েছে দেশটির।

অ্যালস্টোমের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, একটি হাইড্রোজেন ট্যাংক ট্রেনের সঙ্গে থাকবে আর এর ছাদে থাকবে জ্বালানি কোষ। অক্সিজেন ও হাইড্রোজেনের সংমিশ্রণ ঘটিয়ে শক্তি উৎপাদন করবে। অতিরিক্ত জ্বালানি সংরক্ষণ করা হবে ব্যাটারিতে। একবার জ্বালানি নিয়ে ট্রেনটি এক হাজার কিলোমিটার চলতে পারবে। বিশ্বের প্রথম এই হাইড্রোজেন ট্রেনটি ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার গতিতে ছুটবে। হাইড্রোজেন ইঞ্জিন থেকে ধোঁয়ার পরিবর্তে বাষ্প বের হবে। পরিবেশবান্ধব ট্রেনটি কোনো দূষণ নির্গমন করবে না। এর শব্দদূষণ নেই বললেই চলে। ইঞ্জিনচালিত রেলগাড়িগুলোতে খরচও পড়বে কম।

পরিবেশদূষণ কমানোর লক্ষ্যে জার্মানির লোয়ার সেক্সন রাজ্য ট্রেন দুটির জন্য ৮ কোটি ১৩ লাখ ইউরো খরচ করেছে। আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়ানোর জন্যই এ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জার্মানি বলছে।

দেশটির পুরোনো ডিজেলচালিত ইঞ্জিনগুলো সরিয়ে অত্যাধুনিক এই হাইড্রোজেন ইঞ্জিন ব্যবহার করা হচ্ছে। এটিই এখন পৃথিবীর নতুন পরিবহন প্রযুক্তি।

অ্যালস্টোমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হেনরি পোপার্ট লাফার্জ ব্রেমারভার্দেতে এই ট্রেনের উদ্বোধন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘বিশ্বের প্রথম হাইড্রোজেন ট্রেনের বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হলো। আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে আমরা এখন আরও এমন ট্রেন বানাতেই থাকব।’

অ্যালস্টোমের প্রকল্প ব্যবস্থাপক স্টিফেন স্যাচর‍্যাঙ্ক বলেন, ‘এটা সত্য, ডিজেল ইঞ্জিনচালিত ট্রেনের চেয়ে হাইড্রোজেন ট্রেনের দাম অনেক বেশি। তবে এর পরিচালনা খরচ তুলনামূলকভাবে অনেক কম।’

অ্যালস্টোম জানায়, ‘এটি ডিজেল ট্রেনের তুলনায় ব্যয়বহুল, তবে এটি পরিবেশবান্ধব ও দ্রুতগতির। জার্মানির অন্য প্রদেশগুলোও এই ট্রেনের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ২০২১ সালের মধ্যে আরও ১৪টি ট্রেন সরবরাহ করার কথাও জানায় প্রতিষ্ঠানটি। ব্রিটেন, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, নরওয়ে, ইতালি ও কানাডা এই ট্রেনের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ফ্রান্সে সরকার ২০২২ সালে হাইড্রোজেন ট্রেন নামাতে কাজ শুরু করেছে। তথ্যসূত্র: এএফপি ও এনডিটিভি